১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রাত ১১:৫০
শিরোনাম:

গজারিয়ায় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ছাত্রীদের ইভটিজিং তদন্তে উপজেলা প্রশাসন

স্টাফ রিপোর্টার : মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় টেংগারচর ইউনিয়নে হাজী কেরামত আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক কর্তৃক শিক্ষার্থীদের ইভটিজিং এর অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায় গত এক সপ্তাহ পূর্বে হাজী কেরামত আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের অধ্যায়নরত নির্যাতিত ছাত্রী ও অভিভাবকদের পক্ষ হতে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের শিক্ষক দ্বারা ইভটিজিং হতে রেহাই পেতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করেন ইংরেজি শিক্ষক আলমগীর হোসেনের বিরুদ্ধে।

ভুক্তভোগীদের মাধ্যমে জানা যায় ২০০৭ সালে অষ্টম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থী ছদ্মনাম আনিকা প্রাইভেট পড়ার নাম করে তার সাথে বিভিন্ন প্রকার অশ্লীল কার্যকলাপে জড়িয়ে যায় এই শিক্ষক, এবং স্থানীয় সমাজপতিরা সাব্যস্ত করে তাহার বিষয়ে ঐক্য মতে পৌঁছে জরিমানা ও ভবিষ্যতের জন্য হুশিয়ার করে ক্ষমা করে দেন।

উক্ত বিষয়টি বুধবার সরজমিনে হাজী কেরামত আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে অত্যন্ত সাবলীল ভাবে অভিভাবকের ভূমিকায় তদন্তে বিদ্যালয় উপস্থিত হন ভূমি কর্মকর্তা।

অভিযোগের বিষয়টি প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জানান আমরা এক সপ্তাহ পূর্বে উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে জানতে পারি ছাত্রছাত্রীরা ইংরেজি শিক্ষক আলমগীর হোসেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছেন নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর। তারই পরিপেক্ষিতে ম্যানেজিং কমিটিকে অবহিত করে তাহার তিন মাসের জন্য নিয়মিত ক্লাস ও বিদ্যালয় হতে বেতন স্থগিত করা হয়েছে। এবং তদত্তের জন্য উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি এসেছিল। আমরা আগামী শনিবার অভিযোগের বিষয়ে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি সভার তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

উক্ত অভিযোগের বিষয়ে ইংরেজি শিক্ষক আলমগীর সাহেবের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

শিক্ষকের বিরুদ্ধে ইভটিজিং এর বিষয়ে তদন্ত অফিসার সহকারী কমিশনার ভূমি জানান তদন্তের রিপোর্ট যথাসময়ে নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট জমা দেওয়া হবে। তদন্তের বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পরবর্তী কার্যক্রম গ্রহণ করবেন ।