২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, সকাল ৯:০৬
শিরোনাম:

ছাত্রলীগের দুর্নীতি ঢাকতে ছাত্রদলের কাউন্সিল বন্ধ করা হয়েছে

ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের দুর্নীতি ও অনিয়ম ঢাকতেই ছাত্রদলের কাউন্সিল বন্ধ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ।

রোববার দুপুরে আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে বিএনপি ও এর অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে এ অভিযোগ করেন তিনি। মিছিলটি নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে নাইটিঙ্গেল মোড় হয়ে ঢাকা ইন্স্যুরেন্স ভবনের সামনে গিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়।

অভিযোগ করে রিজভী বলেন, ‘ছাত্রদলের কাউন্সিল হলো একটা গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা। সেই কাউন্সিল আদালতের মাধ্যমে বন্ধ করা হয়েছে। গণতন্ত্রের হত্যাকারীরা গণতন্ত্রের গলায় ছুরি চালিয়েছে, আদালতকে কসাইয়ের ছুরি হিসেবে ব্যবহার করা করেছে।কাউন্সিলে একটা উৎসবের আমেজ তৈরি হয়েছিলো। সেই আমেজ সরকার সহ্য করতে পারলো না। ‘চাঁদাবাজির কারণে ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে অব্যাহতি নিতে হয়েছে। তাদের ৮৬ কোটি টাকার চাঁদাবাজি, দুর্নীতি ও অনিয়ম ঢাকতে ছাত্রদলের কাউন্সিল বন্ধ করা হয়েছে।’

সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কী দুর্নীতি করেছেন? আপনারা তার দুর্নীতির কোনো প্রমাণ দিতে পারেননি। তারপরও তাকে কারান্তরীণ করে রাখা হয়েছে। আসলে খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের প্রতীক। তিনি এই দেশে বার বার গণতন্ত্র ফিরিয়ে এনেছেন। সেজন্যই তিনি বন্দি। তিনি বাইরে থাকলে মধ্যরাতের নির্বাচন করতে পারতেন না, স্বাধীনতার ওপর আঘাত করতে পারতেন না।’

এদেশে কর্তৃত্ববাদ নয় গণতন্ত্রই টিকে থাকবে উল্লেখ করে রিজভী দলীয় নেতাকর্মীদের বলেন, ‘‘আজ বিশ্ব গণতন্ত্র দিবস। বিশ্বের মানুষ কথা বলার জন্য, মত প্রকাশের জন্য যুদ্ধ করছে, সংগ্রাম করছে। গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠায় আমাদেরও লড়াই করতে হবে। সেই লড়াইয়ের জন্য আপনারা সবাই প্রস্তুত থাকবেন।’

বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বাবুল, ছাত্রদলের সাবেক সহ সভাপতি নাজমুল হাসান, ছাত্রদলের সভাপতি পদপ্রার্থী ফজলুর রহমান খোকন, হাফিজুর রহমান, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী শাহনাওয়াজ প্রমুখ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।