৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, দুপুর ২:২০

ভর্তি পরীক্ষা না দিয়েও ১২তম, তদন্ত কমিটি

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ না করেও মেধাতালিকায় ১২তম হওয়ার ঘটনা তদন্তে তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। সেই সাথে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন প্রকাশিত না হওয়া পর্যন্ত ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে।

শনিবার (৩০ নভেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) এবং ভর্তি পরীক্ষা কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি কার্যক্রম স্থগিতের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ঘটনাটি তদন্তে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী তিন দিনের মধ্যে তদন্ত শেষ করে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন না আসা পর্যন্ত ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি কার্যক্রম স্থগিত থাকবে।

কমিটিতে আহ্বায়ক করা হয়েছে রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সৈয়দুর রহমানকে। এছাড়া সদস্য হিসেবে আছেন প্রকৌশল অনুষদের ডিন ও পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. সজল চন্দ্র মজুমদার এবং সদস্য সচিব ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোঃ এমদাদুল হক।

এর আগে গত ৮ নভেম্বর (শুক্রবার) বিকেল ৩টা থেকে ৪টা পর্যন্ত কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষের ‘বি’ ইউনিটের (কলা ও মানবিক, সামাজিক বিজ্ঞান ও আইন অনুষদ) ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ভর্তি পরীক্ষা না দিয়েও মেধাতালিকায় ১২তম হওয়া ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী পরীক্ষার কেন্দ্রের আসন হয় কোটবাড়ির টিচার্স ট্রেনিং কলেজে। কেন্দ্রের আসন বিন্যাস থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী ভর্তি পরীক্ষার্থীর নাম মো. সাজ্জাতুল ইসলাম, বাবার নাম মো. রেজাউল করিম। ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার রোল নম্বর ২০৬০৫০। ভর্তি পরীক্ষার্থীদের জন্য পরীক্ষার হলে সরবরাহ করা উপস্থিতির তালিকায় স্বাক্ষরের স্থলে সাজ্জাতের স্বাক্ষর নেই। যেখানে তাকে অনুপস্থিত দেখানো হয়েছে।

এদিকে গত ১২ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার ‘বি’ ইউনিটের প্রকাশিত ফলাফল অনুযায়ী তিনি মেধাতালিকায় ১২তম স্থান অধিকার করেছেন। তবে এ বিষয়টি আগে থেকেই ‘বি’ ইউনিটের সদস্যরা জানতেন বলে জানান সংশ্লিষ্ট ইউনিটের দায়িত্বরতরা।