৩১শে মে, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, সকাল ৭:২৭

চাঁদাবাজিতে অতিষ্ঠ নিউমার্কেট এলাকার ফুটপাতের দোকানদাররা

নিজস্ব প্রতিবেদক : নারী ও শিশু পাচারকারী মামলার গ্রেফতারী ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী ঢাকা মহানগর দক্ষিণের নিউমার্কেট থানা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক চাঁদাবাজ ঈসমাইল হোসেন (৪৫) কে এখনও গ্রেফতার করছেনা পুলিশ। এদিকে তিনিসহ তার সহযোগীদের চাঁদাবাজিতে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন নিউমার্কেট এলাকার গাউছিয়ার ফুটপাতের দোকানদাররা।

ঈসমাইল হোসেনের বিরুদ্ধে গত বছরের ৯ জুন সাতক্ষীরার নারী ও শিশু বিশেষ আদালত গ্রেফতারী ওয়ারেন্ট জারি করেন। রাজধানীর নিউমার্কেট থানায় উক্ত গ্রেফতারী ওয়ারেন্টের নোটিশ পৌছায়। ওয়ারেন্টের নোটিশে উল্লেখ করা হয়, সি, আর-০৩৯/২২, সাতক্ষীরা, তাং-১৫/০৪/২২। আসামী মোঃ ইসমাইল হোসেন, পিতা-মোফাজ্জল হোসেন, সাং-৪৮০ পুরাতন, নতুন ৩৫ জিলানী মার্কেট, নীলক্ষেত, ঢাকা। থানা নিউমার্কেট।

এদিকে ঈসমাইল হোসেনের বিরুদ্ধে নিউমার্কেট এলাকায় চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা ও শিশু ও নারী পাচার করার অভিযোগ রয়েছে। শিশুদের ফুসলিয়ে লোভ দেখিয়ে এবং নারীদের সাথে সম্পর্ক করে লোভে ফেলে পাচার করছেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। নিউমার্কেট এলাকার জিলানী মার্কেটের নিচে পিছনের বাসায় এসব অপরাধ কর্মকান্ড করেন তিনি। বাসায় রাতে মাদকের আসর বসে বলে স্থানীয়রা জানান।জিলানী মার্কেটে তানজিলা এন্টারপ্রাইজ নামে দোকান বসিয়ে সহযোগিদের দিয়ে নিউমার্কেট এলাকার চাঁদা আদায় করে ভাগবাটোয়ারা করেন তিনি অভিযোগ করেন দোকানদাররা। তার এসব অপরাধ কর্মকান্ডে সরাসরি শেল্টার দিচ্ছে নিউমার্কেট থানা আওয়ামী লীগের ১৮ নং ওয়ার্ডের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিউমার্কেট এলাকার ফুটপাতের চাঁদা আদায়ের লাইনম্যান ইব্রাহিম হোসেন ইবু।

এসব রহস্যজনক কারণে নারী ও শিশু পাচারকারী মামলার আসামী মাদক ব্যবসায়ী চাঁদাবাজ ঈসমাইল হোসেনকে গ্রেফতার করছে না পুলিশ। এদিকে ইব্রাহিম হোসেন ইবুর বিরুদ্ধে রয়েছে নানা অভিযোগ। নিউমার্কেট এলাকার গাউছিয়ার ফুটপাতের চাঁদা সরাসরি আদায় করেন তিনি। তিনি ঢাকা কলেজের ছাত্র মার্ডারে জড়িত। তিনি এসব অপরাধ কর্মকান্ডে জড়িয়ে হয়েছেন আঙুল ফুলে কলাগাছ। ৮৩, কাটাবন, এলিফ্যান্ট রোডে তার আলিশান ফ্লাট ও জিলানী মার্কেটে তার চারটি জুতার শোরুমসহ শত কোটি টাকার মালিক তিনি। অথচ ২০১৮ সালেও তিনি ফুটপাতে ১’শ টাকা করে জুতা বিক্রি করতেন বলে স্থানীয়রা জানান।