২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ভোর ৫:২৩
শিরোনাম:

পোশাক কারখানার ভেতরে জালটাকার কারখানা!

পোশাক কারখানার অভ্যন্তরে জালটাকা তৈরির কারখানা গড়ে তোলার অভিযোগ উঠেছে সাউথ বেঙ্গল অ্যাপারেলস নামে কারখানার মালিক সাখাওয়াত হোসেন খানের বিরুদ্ধে। বুধবার দুপুরে সাভার উপজেলার বনগাঁও ইউনিয়নের সাদাপুরে পুরাতন বাড়ির বছিরবাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের পাশে পোশাক কারখানায় অভিযান পরিচালনা করে সাভার মডেল থানা পুলিশ।

এ সময় ওই পোশাক কারখানার একটি গোপন কক্ষ থেকে কোটি টাকার সমপরিমাণ জালনোট ও বেশকিছু সরঞ্জাম জব্দ করা হয়। জালটাকা তৈরির অভিযোগে পুলিশ কারখানার মালিকসহ তিনজনকে আটক করেছে।বুধবার দুপুরে ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান প্রেস ব্রিফিংয়ে মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

আটকরা হলেন- বরিশাল জেলার মুলাদী থানার ডিগ্রিরচর খানবাড়ির জয়নাল আবেদীন খানের ছেলে সাউথ বেঙ্গল অ্যাপারেলস কারখানার মালিক সাখাওয়াত হোসেন খান (৪৫), শরীয়তপুর জেলার পাংশা থানার গয়াধর গ্রামের আল ইসলাম সরদারের ছেলে সুজন মিয়া (৩০) ও বরিশাল জেলার মুলাদী থানার বয়াতিকান্দি গ্রামের মানিক মোল্লার ছেলে নাজমুল হোসেন (২৪)।

ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান বলেন, বুধবার সকালে সাভারের অন্ধ মার্কেটের সামনে থেকে জালটাকা দিয়ে লিচু কিনতে গেলে দোকানদারসহ স্থানীয়রা জালনোট শনাক্ত করেন। পরে তারা ওই চক্রের একজনকে আটক করে সাভার থানা পুলিশে খবর দেন। খবর পেয়ে সাভার মডেল থানা পুলিশ আটক ব্যক্তিকে থানায় নিয়ে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করে। তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পুলিশ তাকে নিয়ে সাভারের বনগাঁওয়ের সাধাপুর পুরানবাড়ি এলাকার সাউথ বেঙ্গল অ্যাপারেলস নামক একটি তৈরি পোশাক কারখানায় অভিযান পরিচালনা করে। কারখানার অভ্যন্তরে একটি গোপন কক্ষে সম্পূর্ণ প্রস্তুত ৫০ লাখ নকল টাকা ও প্রিন্টকৃত অসম্পূর্ণ ৫০ লাখেরও বেশি টাকা উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে তিনজনকে আটক করা হয়।

ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান প্রেস ব্রিফিংয়ে আরও বলেন, আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সাউথ বেঙ্গল অ্যাপারেলস নামক গার্মেন্টসটির অভ্যন্তরে যে জালটাকা তৈরির কারখানা গড়ে তোলা হয়, এর সঙ্গে সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তাসহ কয়েকজনের সহায়তার তথ্য পাওয়া গেছে। আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষ্যে গরুর হাটে, বিভিন্ন শপিংমলে এসব জালনোট ব্যবহার করে অল্প সময়ের মধ্যে বিপুল অর্থের মালিক হওয়ার স্বপ্ন দেখছিলেন তারা।